ঢাকাThursday , 22 June 2023
  1. অগ্নিকান্ড
  2. অনুষ্ঠান
  3. অপরাধ
  4. অবৈধ বালু উত্তোলন
  5. অভিনন্দন
  6. অর্থনীতি
  7. আইন ও বিচার
  8. আক্রান্ত
  9. আটক
  10. আত্মহত্যা
  11. আনন্দ মিছিল
  12. আন্তর্জাতিক
  13. আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস
  14. আবহাওয়া
  15. আর্থিক সহোযোগিতা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নাটোরের দত্তপাড়া হাটের জায়গা অবৈধভাবে দখলকারী ১০জন কারাগারে

Link Copied!

নাটোরের দত্তপাড়া হাটের জায়গা অবৈধভাবে দখলকারী ১০জন কারাগারে

সিনিয়র করেসপনডেন্ট, নাটোর
নাটোর শহরতলীর দত্তপাড়া হাটের জায়গা অবৈধ দখলকারী ১০জনকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে হাজির হয়ে জামিন প্রার্থনা করেন দখলদাররা। এসময় অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট রওশন আলম তাদের জামিন না মঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। অবৈধ দখলদাররা হলো, সদর উপজেলার গোয়ালডাঙ্গার মোতালেব হোসেন, জয়নাল আলী, নূর আলম, বড়হরিশপুর এলাকার হোসেন আলী, আকরাম হোসেন, মোকরামপুর এলাকার শরৎ কুমার, দত্তপাড়া গ্রামের বিকচাঁন আলী, মুক্তা হোসেন, অরুণ মিয়া, আবুল কাশেম।
আদালত সুত্রে জানা যায়, নাটোর শহরতলীর দত্তপাড়ায় সরকারী ১ নং খাস খতিয়ান ভুক্ত হাটের নির্ধারিত ১২ শতক জায়গা দীর্ঘদিন ধরেই দখল নিয়ে স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ করে প্রভাবশালীরা। প্রভাবশালীরা শুধু বাজার দখল করেই ক্ষান্ত হয়নি, সরকারি জায়গা লাখ লাখ টাকায় বেচাকেনাও করছে তারা। এতে বসার জায়গা না পেয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই মহাসড়কের পাশেই নিজেদের উৎপাদিত কাঁচামাল বিক্রি করেন কৃষকরা। এনিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হলে তা দেখে চলতি বছরের ৬ জানুয়ারি সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসান স্বঃপ্রণোদিত হয়ে অবৈধ দখলদারিত্বের বিষয়টি আমলে নিয়ে পিবিআইকে তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দেবার নির্দেশ দেন। পরে তদন্ত করে পিবিআই আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে। এর আগে জেলা প্রশাসন থেকেও অবৈধ দখলদারদের স্থায়ী স্থাপনা সরিয়ে নিতে উচ্ছেদ নোটিশ দেয়া হয়। কিন্তু অবৈধ দখলদাররা তাদের স্থাপনা সরিয়ে নেয়নি।
স্থানীয় কৃষক রেজাউল করিম গাজী বলেন, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতার কর্মযজ্ঞ চলে দত্তপাড়া বাজারে। নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে দখলকৃত স্থানে যে যার মতো গড়ে তুলেছে স্থায়ী স্থাপনা। কেউ কেউ হাটের জায়গায় স্থায়ী অবকাঠামো করে অযথাই ফেলে রেখেছে। দেড় থেকে দুই লাখ টাকায় চলে দখলদারিত্ব কেনাবেচা। কয়েক দিন আগেও আব্দুর রাজ্জাক নামে একজন দোকানদার ২ লাখ টাকায় আরেকজনের দখলকৃত জায়গা কিনেছেন।
কাঁচামাল ব্যবসায়ী সেন্টু হোসেন জানান, বাজারের জায়গা হোসেন আলী, মোতালেব, শরৎ ও নূর আলম পাকা দোকান করে দখল করে রেখেছেন। এক-একজনের একাধিক পাকা দোকানঘর রয়েছে। এ ছাড়া আরও কয়েকজন জায়গা দখল করে অযথাই পরিত্যক্ত করে ফেলে রেখেছেন। তারা নিজেও ব্যবসা করেন না, অন্যদেরও বসতে দেন না। ফলে হাটে আসা ক্রেতা বিক্রেতাদের সীমাহিন দুর্ভোগ পোহাতে হয়।
তিনি আরও বলেন, সড়ক সম্প্রসারণ এবং নতুনভাবে দত্তপাড়া ব্রিজ হওয়ার কারণে আরও দ্রুতগতিতে বাস-ট্রাক চলে। ফলে যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। কয়েক দিন আগেও সড়ক দুর্ঘটনায় একজন মারা গেছেন। আহত হয়েছেন কয়েকজন। তাই মানুষের জীবনের নিরাপত্তায় দ্রুত হাটের জায়গাটি দখলমুক্ত করা দরকার।’
হাটের জায়গা অবৈধভাবে দখলের অভিযোগ যাদের বিরুদ্ধে, তাদের একজন হোসেন আলী। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে কয়েকদিন আগে হোসেন আলী বলেন, ‘বহু বছর ধরে আমরা হাটের জায়গায় ব্যবসা করে আসছি। এখন সরকার ভেঙে দিলে আমাদের কিছুই করার নাই। হাটে আমার মাত্র তিনটি পাকা দোকানঘর আছে।’
আরেক দখলদার নূর আলম জানিয়েছিলেন, ‘আজ থেকে ৫০ বছর আগে আমার বাবা গণি শিকদার ছাদ ঢালাই করে তিন রুমের দোকানঘর করেছিলেন। বাবা মারা যাওয়ার পর আমি সারের ব্যবসা করছি। এ দোকানের মালিকানা বৈধ কি না আমি জানি না।’
দত্তপাড়া বাজার কমিটির সভাপতি আনিসুর রহমান বলেন, ‘অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ করতে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছিলাম। এরপর প্রশাসন থেকে দখলকৃত স্থাপনা চিহ্নিত করে লাল দাগ দিয়েছে। এর কিছুদিন পর সব অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ নোটিশও দিয়েছে প্রশাসন। উচ্ছেদ নোটিশ পাবার পরও কোনও তোয়াক্কা করেনি অবৈধ দখলদাররা। তারা বাজার কিমিটিকে নানা ভাবে হেনস্থারও চেষ্টা করে। পরবর্তীতে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসান স্বঃপ্রণোদিত হয়ে অবৈধ দখলদারিত্বের বিষয়টি পিবিআইকে তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দেবার নির্দেশ দেন। এখন আমাদের দাবি দ্রুত দখলদারদের উচ্ছেদ করা হোক।’
উল্লেখ্য, চলতি বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদে ১৯৫৯ সালের হাটস অ্যান্ড বাজারস (এস্টাবলিস্টমেন্ট অ্যান্ড একুইজেশন) অর্ডিন্যান্স রোধ করে ‘হাট ও বাজার (স্থাপন ও ব্যবস্থাপনা) বিল ২০২৩’ পাস হয়। বিলে বলা হয়েছে, হাট-বাজারের সরকারি খাস জমি কেউ অবৈধভাবে দখলে রাখলে বা উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের পূর্বের অনুমতি ছাড়া হাট-বাজারের খাস জমির ওপর কোনও অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করলে বা নির্মাণের উদ্যোগ নিলে সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা বা এক বছর কারাদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবেন।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।