ঢাকাWednesday , 23 August 2023
  1. অগ্নিকান্ড
  2. অনুষ্ঠান
  3. অপরাধ
  4. অবৈধ বালু উত্তোলন
  5. অভিনন্দন
  6. অর্থনীতি
  7. আইন ও বিচার
  8. আক্রান্ত
  9. আটক
  10. আত্মহত্যা
  11. আনন্দ মিছিল
  12. আন্তর্জাতিক
  13. আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস
  14. আবহাওয়া
  15. আর্থিক সহোযোগিতা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পরিবারের উপর প্রতিপক্ষরে হামলা ও বাড়ি – ঘর ভাংচুর অভিযোগ

Link Copied!

মোঃস্বরন আহম্মেদ স্টাফ রিপোর্ট

ভেড়ামারা! ভেড়ামারা চাঁদগ্রাম ইউনিয়নের বামনপাড়ায় মেহেদী হাসান ও তার পরিবারের উপর প্রতিপক্ষরে হামলা ও বাড়ি – ঘর ভাংচুর অভিযোগ। ২২ আগস্ট মঙ্গলবার। কুষ্টিয়া ভেড়ামারা উপজেলার চাঁদগ্রাম ইউনিয়নের বামনপাড়ার ( ওয়ার্ড নং ০৭)বাসিন্দা মোঃ আমিরুল ইসলাম(৬০) এর ছেলে মোঃ মেহেদী হাসান ও তার পরিবারের উপর সন্ত্রাসী হামলা ও বাড়ি – ঘর ভাংচুর থানায় এজাহার দায়ের। এজাহার সূত্রে জানা যায় আমি মোছাঃ সুমাইয়া খাতুন লিনা( ২৩) জাতীয় পরিচয় পত্র নং ৭৩৬৩৫১৯৪৪৩,স্বামী মোঃ মেহেদী হাসান সাং বামনপাড়া চাঁদগ্রাম থানাঃ ভেড়ামারা জেলাঃ কুষ্টিয়া অত্র থানায় হাজির হয়ে বিবাদী (১) মোঃ শিহাব (২৮) পিতা মৃত শরিফুল ইসলাম, ২। মোঃ শহিদুল ইসলাম (৫০),পিতা মৃত আব্দুল জলিল (৩)মোঃ তৈরান(২৬) ৪। মোঃ রুবেল (৪৫)উভয় পিতা মৃত রশিদ ৫।মোঃ সুরুজ (৩৮) পিতা মৃত শাজাহান,৬। মেছাঃ শামসুন্নাহার(৫৬) স্বামী মৃত শাজাহান, ৭।মোছাঃ শাহানা (৫৪), স্বামী মৃত রশিদ ৮। মোছাঃ রাফি (৪৬) স্বামী-মৃত শরিফুল ইসলাম, সর্বসাং – বামন পাড়া, চাঁদগ্রাম থানা – ভেড়ামারা, জেলা – কুষ্টিয়া গনের বিরুদ্ধে এই মর্মে লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করছি যে আমার শ্বশুড় মোঃ আমিরুল ইসলাম, (৬০) পিতা- মৃত আব্দুল জলিল শেখ, সাং বামন পাড়া(৭নং ওয়ার্ড) চাঁদগ্রাম, থানা – ভেড়ামারা, কুষ্টিয়ার পিতার মৃত্যুঅন্তে বসত বাড়ির জমি ওয়ারেশ হিসেবে আমার শ্বশুড় সহ বিবাদী গণ সরজমিনে মাপঝোকের ভিত্তিতে যার যার নামে নাম খারিজ করে হালনাগাদ খাজনা পরিশোধ করে । তথাপি বিবাদীগণ এরই বিরোধের জের ধরে,ইং ২২- ০৮- ২০২৩ তাং সকাল অনুমান ৬:৩০ ঘটিকার সময় আমার প্রতিবন্ধী শ্বশুড় নিজ বাড়ি থেকে জীবিকার প্রয়োজনে ব্যাটারি চালিত পাখিভ্যানটি নিয়ে রওনা হলে ভেড়ামারা বাজারে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাহির হলে বাড়ি সংলগ্ন রোডের উপরে বিবাদীগন ধারালো হাসুয়া লোহার রড লোহার হাতুড়ি লোহার পাইপ কাঠের বাটাম লাঠিসোটা প্রকৃত দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রে বেআইনি জনতাবদ্ধে সংঘবদ্ধ হয়ে আমার শ্বশুড়কে অকথ্যভাষায় গালিগালাজ প্রদান করে তাহার পথরোধ করে। আমার শ্বশুড় বিবাদীগণকে গালিগালাজ করতে নিষেধ করে তাকে পথরোধ করার কারণে জানতে চাইলে, বিবাদীগণ অতর্কিতভাবে শ্বশুড়ের উপর হামলা করে তাকে বেদনাদায়ক নীলা ফোলা জখম করে। সঙ্গীয় শাশুড়ি, মোছাঃ স্বাধীন খাতুন (৫০) তার স্বামীকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে ০১নং বিবাদী শিহাব তার হাতে থাকা লোহার পাইপ দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে আমার শাশুড়ির কপালের মাঝখানে আঘাত করে হাড়ফাঁটা রক্তাক্ত জখম করে। আমার শ্বশুর শাশুড়িকে বাঁচাতে আমার স্বামী মোঃ মেহেদী হাসান (২৭)এগিয়ে গেলে ২ নং বিবাদী শহিদুল তার হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে স্বামীর কপালের বাম অংশে আঘাত করে হাড়ফাঁটা রক্তাক্ত জখম করে। ০৪ নং বিবাদী রুবেল আমার স্বামীর ডান হাতের কনুইয়ের উপর অংশে স্বজোরে কামড় বসিয়ে রক্তাক্ত জখন করে । বিবাদীগণ একত্রিত হয়ে আমার শ্বশুড়, শাশুড়ি সহ স্বামীর শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়িভাবে মারপিট করে বেদনাদায়ক কালো শিরা জখম করে। বিবাদীগণের আঘাতে তারা লুটিয়ে পড়লে বিবাদীগণ হাত তাদের হাতে থাকা উক্ত দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রে আমার শ্বশুরের বসত বাড়ির ভেতরে অনধিকার প্রবেশ করে তাদের হাতে থাকা অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে বাথরুমের এক লাইডের দেয়াল সহ প্যান পাকা রুমের এক সাইডের দেয়াল ইট নির্মিত বাড়ির সীমানা প্রাচীর ভাংচুর করে অনুমান ১,৫০,০০০( এক লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) ক্ষতিসাধন করে। ০৬ নং হতে ০৮ নং বিবাদীগণ আমার শাশুড়ির শয়ন ঘরে প্রবেশ করে ঘরে রক্ষিত একটি কাঠের বাক্সের তালা ভেঙে বাক্সে স্বামীর ইজিবাইক ক্রয়ের উদ্দেশ্যে ঘোষিত নগদ ১,১০,০০০( এক লক্ষ দশ হাজার ) টাকা ; দশ আনা ওজনের একজোড়া স্বর্ণের চুড়ি সাত আনা ওজনের একটি স্বর্ণের চেইন ছয় আনা ওজনের এক জোড়া স্বর্ণের দুল যেগুলো মোট মূল্য অনুমান ১৪৩৭৫০ টাকা বাহের করে নেয় ও আমাকে এবং আমার নাবালক সন্তান মোঃ লিয়ান (০৫) দেবর মোঃ সাজ্জাদ হোসেন(০৮)গনের মুখে সহ শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে চড়থাপ্পর দিয়ে নীলাফোলা জখম করে। আমাদের ডাক চিৎকার করে সাক্ষী (০১) মোহাম্মদ আরিফ(৩৮),পিতা মোঃ আবেদ আলী সাং নওদাপাড়া পৌর ৩ নং ওয়ার্ড মোঃ আজগার (৬০) পিতা অজ্ঞাত সাং বামন পাড়া উভয় থানা ভেড়ামারা জেলা কুষ্টিয়া দ্বয় সহ এগিয়ে আসলে বিবাদী গন খুন জখমের হুমকি সহ বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি প্রদান করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। আমি সাক্ষী গণের সহযোগিতায় পাখি ভ্যানযোগে আমার শ্বশুর স্বামী শাশুড়ি গনকে ৫০ শয্যা ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আমার শাশুড়কে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা প্রদান শেষে স্বামী এবং শাশুড়ির দয় কে ভর্তি রাখেন । বিষয়টি নিয়ে পরিবার ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে আলোচনা করে থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করতে বিলম্ব হলো।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।