ঢাকাSunday , 18 December 2022
  1. অপরাধ
  2. অভিনন্দন
  3. অর্থনীতি
  4. আইন ও বিচার
  5. আটক
  6. আত্মহত্যা
  7. আন্তর্জাতিক
  8. আর্থিক সহায়তা
  9. আলোচনা সভা
  10. আহত
  11. উদ্বোধন
  12. এক্সিডেন্ট
  13. ওয়াজ মাহফিল
  14. কৃষি বার্তা
  15. খুন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বর্জ্যের দানব এখন কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে

Link Copied!

বর্জ্যের দানব এখন কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে

কামরুল ইসলাম চট্টগ্রাম

লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবন-জীবিকা আজ নির্ভর করছে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের উপর। কিন্তু জীবনের নির্মম পরিহাস প্লাস্টিক দূষণের কবলে আজ সেই কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত এখন ধুঁকছে। আর দুঃখের বিষয় প্লাস্টিক দুষণের ক্ষতি কারক প্রভাব পড়ছে সমুদ্রের প্রাণবৈচিত্র্যে উপর । প্লাস্টিক দূষণের বিরুদ্ধে জনগণের মাঝে সচেতনতা তৈরির জন্য কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে স্থাপন করা হয়েছে প্লাস্টিক বর্জ্যের তৈরি বিশালাকৃতির এক ‘দানব’।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও এশিয়াটিক মার্কেটিং কমিউনিকেশন লিমিটেডের সহায়তায় বেসরকারি সংস্থা বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন গত বৃহস্পতিবার প্লাস্টিক বর্জ্যের দানবটি তৈরি করে। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের লাবণী ও সুগন্ধা পয়েন্টের মাঝামাঝি সীগাল পয়েন্টে স্থাপিত এই প্লাস্টিক দানবটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান। দানব দেখতে ভিড় করছেন পর্যটকরা।

পর্যটক ও স্থানীয়রা বলছেন, প্লাস্টিক বর্জ্যকে দানবরূপে তুলে ধরে প্লাস্টিকের দূষণের বিরুদ্ধে মানুষের বিবেককে নাড়া দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। গত এক মাস ধরে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত এবং সেন্টমার্টিন দ্বীপে প্লাস্টিক দূষণ রোধে প্লাস্টিকের বিনিময়ে উপহার কর্মসূচি শুরু করে বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন। এই ক্যাম্পেইনে পর্যটক ও স্থানীয় লোকজন প্লাস্টিক বর্জ্য জমা দিয়ে নিত্যপ্র্রয়োজনীয় পণ্য সংগ্রহ করেছেন। গত বুধবার এসব প্লাস্টিক দেশের একমাত্র প্রবাল সমৃদ্ধ দ্বীপ সেন্টমার্টিন থেকে ট্রলারে করে কঙবাজার সমুদ্র সৈকতে আনা হয়। এরপর তৈরি করা হয় প্লাস্টিকের এই দানব।

আয়োজকরা বলছেন, মানুষের মধ্যে প্লাস্টিকের ক্ষতিকর দিক তুলে ধরতে ৩৪ ফুটের বিশাল এই দানব আকৃতির স্ট্যাচুটি তৈরি করা হয়েছে। এতে প্রায় ৫ টন প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবহৃত হয়েছে। এটি দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ।

বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের বোর্ড সদস্য জামাল উদ্দিন বলেন, প্লাস্টিকের পণ্য ব্যবহারের পর সেগুলো যত্রতত্র ফেলে দেওয়া হয়। এরপর সেগুলো মাইক্রোপ্লাস্টিক হয়ে সাগরে মিশে যায় এবং সেখানকার পরিবেশ-প্রতিবেশকে বিপন্ন করে। এ কারণে জীববৈচিত্র্য ধ্বংসের পাশাপাশি মানব দেহেও এর ক্ষতিকর প্রভাব দেখা দিচ্ছে। এই স্ট্যাচুটি ১৫ দিন সমুদ্র সৈকতে প্রদর্শন করা হবে বলে জানান তারা।

জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান বলেন, কঙবাজারে প্লাস্টিক বর্জ্যের পরিমাণ দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। ফলে হুমকির মুখে পড়েছে সাগরের পরিবেশ এবং জীববৈচিত্র্য। প্লাস্টিক দূষণ রোধে সচেতনতা বাড়ানো না গেলে আমাদের ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হবে। তাই এখনই পরিকল্পিত উদ্যোগ নিতে হবে।

বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ও সমুদ্রবিজ্ঞানী সাঈদ মাহমুদ বেলাল হায়দার গণমাধ্যম কে বলেন, প্লাস্টিক বর্জ্যের কারণে সেন্টমার্টিন ও সোনাদিয়া দ্বীপের প্রাকৃতিক পরিবেশ এখন বিপন্ন। প্লাস্টিকের কুফল নিয়ে প্রদর্শনীর আয়োজন প্রশংসার দাবি রাখে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।