ঢাকাশনিবার , ৭ অক্টোবর ২০২৩
  1. অগ্নিকান্ড
  2. অনুষ্ঠান
  3. অপরাধ
  4. অবৈধ বালু উত্তোলন
  5. অভিনন্দন
  6. অভিযোগ
  7. অর্থনীতি
  8. আইন ও বিচার
  9. আওয়ামী লীগ
  10. আওয়ামী লীগে
  11. আক্রান্ত
  12. আটক
  13. আত্মহত্যা
  14. আদালত
  15. আনন্দ মিছিল

বিরল রোগে আক্রান্ত হয়ে লেখাপড়া বন্ধ হলো চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রীর

admin
অক্টোবর ৭, ২০২৩ ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বিরল রোগে আক্রান্ত হয়ে লেখাপড়া বন্ধ হলো চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রীর
পিতার সামর্থ্য না থাকায় উন্নত চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত কুল্যার ছামিয়া

ঃ আশাশুনি উপজেলার কুল্যা গ্রামে বিরল রোগে আক্রান্ত হয়ে লেখাপড়া বন্ধ হল চতুর্থ শ্রেণীর এক ছাত্রীর। তার পিতা ও হতদরিদ্র ভ্যান চালক হওয়ায় মেয়ের উন্নত চিকিৎসার সামর্থ্য না থাকায় অকালেই যেন মৃত্যু হাতছানি দিচ্ছে বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু ছামিয়ার। সে আশাশুনি উপজেলার কুল্যা গ্রামের প্রাথমিক স্কুল পাড়ার হতদরিদ্র ভ্যান চালক ইয়াছিন আলীর মেয়ে। বিরল রোগে আক্রান্ত ছামিয়া খাতুন কুল্যা বেনাডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর মেধাবী শিক্ষার্থী।
পারিবারিক সূত্রে জানাগেছে, ৫—৬ বছর আগে হঠাৎ ছামিয়ার শরীরে খোস চামড়া উঠতে দেখা যায়। তার পিতা হত দরিদ্র হওয়ায় বিশেষজ্ঞ কোন চিকিৎসককে মেয়েকে দেখাতে না পারলেও স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে মেয়ের চিকিৎসা করতে থাকেন। চিকিৎসা চলাকালীন মেয়েটি পুরোপুরি সুস্থ না হলেও কয়েক সপ্তাহের জন্য সুস্থ থাকে সে। গত কয়েকদিন যাবত বিরল রোগে আক্রান্ত স্কুল ছাত্রী ছামিয়া মারাত্মকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং তার শরীরের পায়ের পাতা থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্থান থেকে প্রচুর পরিমাণ খোস চামড়া উঠতে থাকে। অসহ্য চুলকানির ফলে শিশুটির শরীরের বিভিন্ন স্থান দিয়ে রক্ত ঝরে পড়তে দেখা যায়। চুলকানির যন্ত্রণায় অবুঝ শিশুটি সকাল—দুপুর—রাতে ছটফট করতে থাকে বলে জানান মা রিজিয়া খাতুন। হতদরিদ্র পিতা ইয়াসিন আলী জানান আমি একজন সামান্য ভ্যানচালক। মা, স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে তার পরিবার। সড়কে ভ্যান চালিয়ে তার সামান্য উপার্জনে যেখানে সংসার চালাতেই হিমশিম খাচ্ছেন তিনি, সেখানে মেয়ের উন্নত চিকিৎসার জন্য কোথায় পাবেন মোটা অংকের টাকা? তাই অর্থের অভাবে গ্রাম অঞ্চলের গ্রাম্য ডাক্তারই একমাত্র ভরসা তার। তবে উন্নত চিকিৎসা পেলে তার মেয়ে সুস্থ হয়ে আবারও স্বাভাবিক জীবনে ফিরে স্কুলে যাবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি। এ বিষয়ে কুল্যা ইউপি চেয়ারম্যান এস এম ওমর সাকী ফেরদৌস পলাশের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এবিষয়ে আমাকে কেউ কিছুই জানাননি। এধরণের বিরল রোগের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের কোন বাজেট না থাকলেও মানববিক দিক বিবেচনা করে মেয়েটির চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহযোগীতা করার আশা ব্যক্ত করেন তিনি। এমতাবস্থায় অসহায় পরিবারের শিশুটির জীবন বাঁচাতে দাতব্য প্রতিষ্ঠান ও সমাজ সেবক ধর্ণাঢ্য ব্যক্তিদের এগিয়ে আশার আহবান জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।

Design & Developed by BD IT HOST