ঢাকাশনিবার , ১০ জুন ২০২৩
  1. অগ্নিকান্ড
  2. অনুষ্ঠান
  3. অপরাধ
  4. অবৈধ বালু উত্তোলন
  5. অভিনন্দন
  6. অভিযোগ
  7. অর্থনীতি
  8. আইন ও বিচার
  9. আওয়ামী লীগ
  10. আওয়ামী লীগে
  11. আক্রান্ত
  12. আটক
  13. আত্মহত্যা
  14. আদালত
  15. আনন্দ মিছিল

কালাইয়ের সিয়ামকে বাঁচাতে সহৃদয়-বিত্তবানদের প্রতি সার্বিক সাহায্যের মিনতি

Link Copied!

কালাইয়ের সিয়ামকে বাঁচাতে সহৃদয়-বিত্তবানদের প্রতি সার্বিক সাহায্যের মিনতি

স্টাফ রিপোর্টার: মোঃ সামিউল হক সায়িম

কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই মাত্র ১৫ বছর বয়সে নিভু নিভু করছে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী আরেফিন রহমান সিয়ামের জীবন। বনমেরু ট্রান্সপ্লান্ট করা না গেলে মৃত্যু তার অবধারিত বলেছেন চিকিৎসকরা। বনমেরু ট্রান্সপ্লান্ট করতে খরচ হবে ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকা। কিন্তু সিয়াম নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে হওয়ায় সেই সাধ্য নেই। যা সঞ্চয় ছিল সব চিকিৎসা বাবদ ব্যয় করে আজও সুস্থ্য হয়নি সিয়াম। তার সুস্থ্যতার জন্য গত কয়েক মাসে ১১ লক্ষাধিক টাকা ব্যয় হয়েছে। এখন প্রতিমাসে রক্ত দেওয়া ছাড়াও ঔষধের জন্য খরচ হচ্ছে ৭০ হাজার টাকা। এ অবস্থায় সিয়ামকে বাঁচাতে হলে দ্রুত বনমেরু ট্রান্সপ্লান্ট করার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

কালাই পৌরশহরের পৌরপাড়া মহল্লার আশিকুর রহমানের বড় ছেলে আরেফিন রহমান সিয়াম, কালাই উপজেলায় অবস্থিত ওমর কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড ওমর গার্টেন একাডেমির নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী। সিয়াম অসুস্থ হয় গত বছর। শরীরে তার রক্তশূন্যতা দেখা দেয়। চিকিৎসার জন্য তাকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে গত বছরের ৮ আগষ্ট হাসপাতালের হেমাটোলজি বিভাগের প্রধান ডা. সুরজিত সরকার তিতাস সিয়ামের অবর্ধক রক্তশূন্যতা রোগ শনাক্ত করেন। এটি একটি বিরল রক্তব্যাধি। যাতে শরীর প্রয়োজনীয় সংখ্যক রক্তকণিকা উৎপাদন বন্ধ করে দেয়। এরপর ঢাকা, রংপুর এবং ভারতের ভেলোর সিএমসি সহ একাধিক হাসপাতালে পরীক্ষা-নিরিক্ষার পর সেখানকার চিকিৎসকগণও সিয়ামের শরীরে একই রোগ শনাক্ত করেন। দুই দেশের চিকিৎসকগণ দ্রুত সময়ের মধ্যে সিয়ামের বনমেরু ট্রান্সপ্লান্টের পরামর্শ দিয়েছেন। তার শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। রক্তের প্লাটিলেট ১৫ হাজার এবং হিমোগেগ্লোবিন মাত্র ৬। বর্তমানে ঢাকার সিএমএইচ হাসপাতালের হেমাটোললজি বিশেষজ্ঞ ডা. কর্ণেল মো: মোস্তাফিল করিম সিয়ামের চিকিৎসা করছেন।

সিয়ামের বাবা একজন জুতা ব্যবসায়ী। কালাই মসজিদ মার্কেটে তার দোকান আছে। সেই দোকানের আয় দিয়েই তাদের সংসারের খরচ চলতো। কিন্তু দোকানের মালামাল বিক্রি করে গত একবছর ধরে সিয়ামের চিকিৎসা ব্যয় মেটাতে তার খরচ হয়েছে ১১ লক্ষাধিক টাকা। এখন ছেলে সিয়ামের বনমেরু ট্রান্সপ্লান্ট করার মত সামর্থ্য তার নেই। তাই ছেলেকে বাঁচাতে বিত্তবান সহৃদয়বান ব্যক্তিদের কাছে তিনি সহযোগিতার আহবান জানিয়েছেন।

সিয়ামের বাবা আশিকুর রহমান বলেন,‘ছেলের চিকিৎসার জন্য এখনো প্রতিমাসে ৭০ হাজার টাকার ঔষধ কিনতে হয়। ছয় শতকের বসতভিটা আর একটি জুতার দোকানই আমার সম্বল। যা কিছু ছিল সবই ব্যয় করেছি। তারপরও ছেলেকে সুস্থ্য করতে পারিনি। এখন কিভাবে ছেলের চিকিৎসা ব্যয় মেটাবো ভেবে পাচ্ছি না। বনমেরু ট্রান্সপ্লান্ট করতে দেশে ২৫ থেকে ৩০ লাখ এবং ভারতে ৩৫ থেকে ৪০ লাখ টাকা খরচ হওয়ার কথা চিকিৎসকগণ জানিয়েছেন। তিনি ছেলেকে বাঁচাতে সমাজের বিত্তবান ব্যক্তিদের সহযোগিতা করার আবেদন জানিয়েছেন।

সম্প্রতি অসুস্থ সিয়ামের চিকিৎসার জন্য তাঁর নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ওমর কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড ওমর গার্টেন একাডেমি ৯২০০০ টাকা দিয়েছে।

এমতাবস্থায় সিয়ামকে বাঁচাতে হলে ব্যক্তিগতভাবে, সমষ্টিগতভাবে, সামাজিকভাবে এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে সার্বিক সাহায্য-সহযোগিতার হাত বাড়ানো উচিত। মানুষের কল্যাণে যারা কাজ করে থাকেন, অসুস্থ সিয়ামের পরিবার তাদের পথপানে চেয়ে রয়েছেন। সেই ভরসা করেই সিয়ামের পিতা আশিকুর রহমান ব্যাংক হিসাব নাম্বারসহ অন্যান্য নাম্বারগুলো জানিয়েছেন।

আশিকুর রহমানের অগ্রণী ব্যাংকের কালাই শাখার সঞ্চয়ী হিসেব নাম্বার: ০২০০০১৮৮৪০৬৯৩, বিকাশ নাম্বার: ০১৭৫৩২৬২৯১০, মোবাইল নাম্বার:
০১৭২৫-৭৩৩৫৫৫।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।

Design & Developed by BD IT HOST